বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৪:২২ পূর্বাহ্ন

ছাত্রলীগ নেতার স্ত্রীর মরদেহ নিয়ে সড়কে মানববন্ধন

আরব-বাংলা রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ ১:১২ pm

মাদারীপুরে গৃহবধূ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতার বিচারের দাবিতে মরদেহ নিয়ে সড়কে মানববন্ধন করেছেন স্বজন ও এলাকাবাসী।

বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ডাসার উপজেলার পাথুরিয়ারপাড় এলাকায় এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ব্যানার ফ্যাস্টুন হাতে মানববন্ধনে অংশ নেন স্বজন ও এলাকাবাসী। এ সময় তনিমা চৌধুরী চৈতীর (২২) হত্যাকাণ্ডে জড়িত অভিযুক্ত তার স্বামী কালকিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীনকে আহম্মেদকে (২৭) দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবি জানান। তা না হলে আগামীতে বৃহত্তর আন্দোলনের ঘোষণা দেন নিহতের স্বজনরা।

নিহত গৃহবধূর নাম তনিমা চৌধুরী চৈতী ডাসার উপজেলার পূর্ব মাইজপাড়া গ্রামের সেলিম চৌধুরীর মেয়ে ও কালকিনি সৈয়দ আবুল হোসেন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ইংরেজির ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা শাহীন আহম্মেদ কালকিনির দক্ষিণ রাজদী গ্রামের আবুল ফকিরের ছেলে।

নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, ১১ মাস আগে ছাত্রলীগ নেতা শাহীনের বিয়ে হয় চৈতীর। বিয়ের পর যৌতুকের জন্য চৈতীকে চাপ দিতে থাকে শাহীন। সম্প্রতি বাবার বাড়ি থেকে কয়েক লাখ টাকা এনে শাহীনের হাতে তুলেও দেয় চৈতী। এরপরও যৌতুক দাবি করে শাহীন ও তার পরিবারের লোকজন।

পরে যৌতুক দিতে অস্বীকৃতি জানালে মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে চৈতীকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে মরদেহ ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ ওঠে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। পরে মরদেহ উদ্ধার করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে ঘটনার তিনঘণ্টা পর চৈতীর বাবার বাড়িতে খবর দেয়া হয়। পরিকল্পিতভাবে চৈতীকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ নিহতের পরিবারের।

এদিকে বুধবার দুপুরে নিহত চৈতীর মরদেহ জেলা সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। সেখান থেকে মরদেহ নিয়ে মানববন্ধন করেন স্বজন ও এলাকাবাসী। পরে গ্রামের বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয় তাকে।

শেয়ার করুন

আরো
© All rights reserved © arabbanglatv

Developer Design Host BD