শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১২:৪৮ অপরাহ্ন

তিস্তার পানি বিপৎসীমার ৪১ সেন্টিমিটার ওপরে, কুড়িগ্রামে বন্যার আশঙ্কা

আরব-বাংলা রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২৩ ৮:৫৬ am

কুড়িগ্রামে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ৪১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া ব্রহ্মপুত্র, দুধকুমার ও ধরলাসহ অনান্য নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) তথ্যমতে, কুড়িগ্রাম জেলার ব্রহ্মপুত্রে নদের নুনখাওয়া পয়েন্টের পানি বিপৎসীমার ৭২ সেন্টিমিটার নিচে, চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপৎসীমার ৫৮ সেন্টিমিটার নিচে, কুড়িগ্রাম সদর পয়েন্টে ধরলা নদীর পানি বিপৎসীমার ৯৭ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ৪১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় জেলার উলিপুর উপজেলার বেগমগঞ্জ, নয়ারহাট, সাহেবের আলগাসহ নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে স্বল্পমেয়াদি বন্যার পূর্বাভাস দিয়েছে সংস্থাটি।

তিস্তার গড়াইপিয়া এলাকার বাসিন্দা মো. নুর আলম বলেন, ‘গত দুই থেকে তিন দিন ধরে আবারও তিস্তা নদীর পানি হু হু করে বৃদ্ধি পাচ্ছে, ধানক্ষেত নিয়ে খুব দুঃশ্চিন্তায় আছি। তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেলেও নদী ভাঙে, পানি কমলেও নদী ভাঙে।’

খিতাব খাঁ গ্রামে সুরমান আলী বলেন, ‘দিন-রাতে বৃষ্টি হচ্ছে, আর তিস্তার পানি বাড়ছে। গরু-ছাগল নিয়ে ফের ভোগান্তি শুরু হলো।’

পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘ভারতের আসাম ও অরুণাচলে ভারী বৃষ্টির কারণে উজানের ঢল ও স্থানীয় বৃষ্টিপাতে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে। কয়েকদিনের মধ্যে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপৎসীমায় পৌঁছাতে পারে। ফলে জেলার সদরের কিছু অংশ, উলিপুর ও চিলমারী উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে স্বল্পমেয়াদি বন্যার পূর্বাভাস রয়েছে। পানি বিপৎসীমায় পৌঁছালেও খুব বড় বন্যার আশঙ্কা নেই।’

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল আরীফ বলেন, ‘বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি রেখেছি। খাদ্য সহায়তা, উদ্ধার নৌকা ও আশ্রয়কেন্দ্রসহ প্রয়োজনীয় সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।’

শেয়ার করুন

আরো
© All rights reserved © arabbanglatv

Developer Design Host BD