সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ০৫:২৫ অপরাহ্ন

রেকি করে চুরি করতো চক্রটি

আরব-বাংলা রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২৩ ৯:১১ am

ফাঁকা বাসা-বাড়ি আগে থেকে রেকি করে চুরি করা চক্রের ৭ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) লালবাগ বিভাগ।

গ্রেপ্তাররা হলেন- মো. সঞ্জীব (২৪), মো. হেলাল উদ্দিন (২৪), মো. রনি (৩০), মো. রিপন (৩২), মো. তরিকুল ইসলাম (৩০), মো. শামীম (২৩) ও মো. আরিফুল ইসলাম ওরফে সুমন (৩৩)। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন ব্রান্ডের ৪৮টি ল্যাপটপ, ৫টি মোবাইল ফোন ও নগদ ৬ লাখ ২৪ হাজার টাকা জব্দ করা হয়েছে।

শনিবার (২৬ আগস্ট) রাজধানীসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ডিএমপির লালবাগ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চক্রটি প্রথমে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় রেকি করতো। পরে সময় সুযোগ বুঝে ফাঁকা বাসার গ্রিল কেটে ও তালা ভেঙে রুমে ঢুকে ল্যাপটপ, মোবাইল, নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার চুরি করতো তারা। এভাবে চক্রটি গত দুই বছর ধরে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় চুরি করেছে। এমনকি চোরাই ল্যাপটপ তারা বিক্রি করতো রাজধানীর একটি অভিজাত শপিং কমপ্লেক্সের একটি দোকানে।

সম্প্রতি রাজধানীর লালবাগের একটি ভবনের ফাঁকা তিনটি বাসা থেকে ল্যাপটপ, মোবাইল, নগদ ১০ লাখ টাকা ও স্বর্ণালংকার চুরি করে এই চোর চক্র। চক্রের সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রোববার (২৭ আগস্ট) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান লালবাগ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. জাফর হোসেন।

মো. জাফর হোসেন বলেন, তারা প্রথমে একটি বাসা রেকি করে। বাসা ফাঁকা থাকলে সেই বাসায় টার্গেট করে চুরি করে। মূলত যে বাসাগুলোতে সিকিউরিটি থাকে না।

তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে সিসি ক্যামেরার ফুটেজে চোর চক্রের চারজনকে শনাক্ত করা হয়। এরপর চুরি যাওয়া একটি মোবাইলের সূত্র ধরে সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে একটি অভিজাত শপিং সেন্টারের দোকানে চোরাই ল্যাপটপ কেনাবেচার কথা জানা যায়। সেখানে অভিযান চালিয়ে চুরি যাওয়া দুটি ল্যাপটপসহ চোরাই ৪৮টি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়। দোকানদার সুমন গ্রেপ্তার রনির কাছ থেকে কম দামে চোরাই ল্যাপটপ কেনেন।

তিনি আরও বলেন, গ্রেপ্তাররা শনির আখড়ায় একটি কারখানায় কাজ করতেন। সেখান থেকেই এভাবে চুরি করার জন্য একসঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয় গ্রেপ্তাররা। রাজধানীর কদমতলী, সূত্রাপুর, কলাবাগ, লালবাগ ও ওয়ারীসহ বিভিন্ন থানায় তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলায় গ্রেপ্তারও হয়েছে। বাসা-বাড়িতে সিসি ক্যামেরা লাগালে এমন চুরি থেকে কিছু রেহাই মিলতে পারে অথবা চুরি হলেও সহজেই চোরদের ধরা যাবে।

ল্যাপটপ চুরির পর কারো ব্যক্তিগত ছবি, ভিডিও কিংবা তথ্য ফাঁস করে দিতেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে লালবাগ বিভাগের ডিসি বলেন, যে দোকানে বিক্রি করা হতো দোকানটি চোরাই ল্যাপটপ কম দামে কিনতো। এরপর সেগুলো ফরম্যাট দেওয়ার পর উইন্ডোজ দিয়ে বিক্রি করে দিত। তারা গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস কিংবা ফাঁসের হুমকি দিয়ে টাকা হাতিয়ে নিতো না।

উদ্ধার ৪৮ ল্যাপটপের মালিকানার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিআইডির ল্যাবে ফরেনসিক করে ল্যাপটপের মালিকানার তথ্য সংগ্রহ করা হবে।

শেয়ার করুন

আরো
© All rights reserved © arabbanglatv

Developer Design Host BD