বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ১২:০৯ পূর্বাহ্ন

জামানত হারালেন প্রশ্নফাঁসে আলোচিত সেই রূপা

আরব-বাংলা রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২২ মে, ২০২৪ ১:৫৯ pm

দু’বছর আগে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া আলোচিত বগুড়ার দুপচাঁচিয়ার মাহবুবা নাছরিন রূপা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে লড়তে গিয়ে জামানত হারিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার (২১ মে) দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তার ফলাফল বিশ্লেষণে বিষয়টি জানা যায়।

নির্বাচনে মাহবুবা নাছরিন কাপ-পিরিচ প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ৭ হাজার ১৫০। এই উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩৭১ জন। সেখানে তিন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর ঝুলিতে মোট প্রদত্ত ভোট ছিল ৬৮ হাজার ৫৪৪। এর মধ্যে বৈধ ভোট ছিল ৬৫ হাজার ১২৫টি।

নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের জন্য একজন প্রার্থীকে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অনুকূলে ১ লাখ টাকা জমা দিতে হয়। আর ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের জন্য ৭৫ হাজার টাকা জমা দিতে হয়। নির্বাচনে কোনো নির্বাচনী এলাকার প্রদত্ত ভোটের ১৫ শতাংশ ভোট যদি কোনো প্রার্থী না পান, তাহলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়।

এই বিধি অনুযায়ী মাহবুবা নাছরিনকে জামানত রক্ষার জন্য পেতে হতো ন্যূনতম ১০ হাজার ২৮২ ভোট। তা না পাওয়ায় নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া অর্থ খোয়াতে হচ্ছে তাকে।

মাহবুবা নাছরিন রূপার রাজনৈতিক চর্চার হাতেখড়ি রাজধানী থেকে। মাহবুবা নাসরিন ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদে ছিলেন। পরে ২০১৯ সালে দুপচাঁচিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০২০ সালের ২০ ডিসেম্বর তিনি বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্যপদ পান।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান থাকাকালে অডিটর নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০২২ সালের ২১ জানুয়ারি রাজধানীতে গ্রেপ্তার হন তিনি। ইলেকট্রনিক ডিভাইস, মোবাইল, অডিটর পরীক্ষার প্রবেশপত্র এবং নগদ ১ লাখ ৯৭ হাজার টাকাসহ গ্রেপ্তার হয়ে সে সময় দেশজুড়ে আলোচিত হয়ে ওঠেন মাহবুবা।

ওই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ২০২২ সালের ২৩ জানুয়ারি তাকে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগ থেকে মাহবুবাকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়। পরের দিন উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিও তাকে বহিষ্কার করে। এরপর একই বছরের ৫ জুন ভাইস চেয়ারম্যান পদ থেকে মাহবুবাকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

তবে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় ২০২৩ সালে অব্যাহতি পান মাহবুবা নাছরিন। নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা হলফনামায় মাহবুবা নাসরিন এই অব্যাহতি পাওয়ার কথা জানান।

তার হলফনামা থেকে আরও জানা যায়, মাহবুবা নাসরিনের পেশা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। বছরে তার আয় ২ লাখ ৯০ হাজার টাকা। এর মধ্যে বাড়ি ও দোকানভাড়া থেকে আয় বছরে দুই লাখ টাকা। ভাইস চেয়ারম্যানের সম্মানী থেকে বছরে ৩ লাখ ২৪ হাজার টাকা আয় করেছেন। নগদ এক লাখ টাকা, নিজের ১০ ভরি স্বর্ণালংকার এবং এক বিঘা আবাদি জমির ছাড়া আর কোনো কিছু নেই তার। এ ছাড়া আয়করের নথিতে নিট সম্পদ উল্লেখ করেছেন ১৭ লাখ ৬৬ হাজার টাকা। তবে হলফনামায় এই সম্পদের বিবরণ নেই।

দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে দুপচাঁচিয়ায় চেয়ারম্যান পদে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আহম্মেদুর রহমান বিপ্লব। মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ৩৭ হাজার ৫৪৬ টি ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফজলুল হক প্রামানিক আনারস প্রতীকে ২০ হাজার ৪২৯ ভোট পেয়েছেন।

দুপচাঁচিয়ার নির্বাচনের ফলাফল নিশ্চিত করেছেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জান্নাত আরা তিথী।

শেয়ার করুন

আরো
© All rights reserved © arabbanglatv

Developer Design Host BD