বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন

গাজা ইস্যুতে ইউটার্ন, যুদ্ধবিরতি চায় যুক্তরাষ্ট্র

আরব-বাংলা রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ ৮:৩১ am

এতদিন বিরোধিতা করে এলেও এখন গাজায় যুদ্ধবিরতি চাইছে যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর সংস্থা নিরাপত্তা পরিষদে এ বিষয়ক একটি প্রস্তাব রেজোল্যুশন আকারে তুলতে প্রস্তুতিও শুরু করেছে দেশটি।

প্রস্তাবটি এখনও খসড়া পর্যায়ে রয়েছে এবং সেটির একটি অনুলিপি বার্তাসংস্থা রয়টার্সের কাছে রয়েছে। খসড়াটি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, গাজা উপত্যকায় শিগগিরই অস্থায়ী যুদ্ধবিরতি, হামাসের কব্জায় থাকা জিম্মিদের মুক্তি এবং উপত্যকায় মানবিক সহায়তা ও ত্রাণসামগ্রী পৌঁছানো ক্ষেত্রে যাবতীয় বাধা-প্রতিবন্ধকতা তুলে নেওয়া— এই ৩টি বিষয় গুরুত্ব দিয়ে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে সেখানে।

প্রসঙ্গত, গত ৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার নিয়ন্ত্রণকারী গোষ্ঠী হামাসের যোদ্ধারা গাজার উত্তরাঞ্চলীয় ইরেজ সীমান্তে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ১ হাজার ২০০ জন মানুষকে হত্যার পাশাপাশি ২৪০ জন ইসরায়েলি ও বিদেশি নাগরিককে ধরে নিয়ে যায়। অভূতপূর্ব সেই হামলার পর সেদিন থেকেই গাজায় অভিযান শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী।

চার মাসেরও বেশি সময় ধরে চলমান সেই অভিযানের শুরু থেকে এ পর্যন্ত গাজায় নিহত হয়েছেন ২৯ হাজারেরও বেশি মানুষ, আহতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৭০ হাজার। এছাড়া ইসরায়েলি বাহিনীর গোলায় বাড়িঘর হারিয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছেন আরও লাখ লাখ ফিলিস্তিনি।

ইসরায়েলি বাহিনীর অভিযান শুরুর প্রায় এক মাস পর গত অক্টোবরে গাজায় যুদ্ধবিরতির প্রথম প্রস্তাবটি নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে তুলেছিল রাশিয়া; কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য তাতে ভেটো বা আপত্তির কারণে তা পাস হতে পারেনি।

তারপর আরও দু’দফায় নিরাপত্তা পরিষদে যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব ওঠার পর গত নভেম্বরে অস্থায়ী মানবিক বিরতিতে সম্মত হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। মূলত কাতার, মিসর ও যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাপক কূটনৈতিক তৎপরতার কারণেই সম্ভব হয়েছিল এই বিরতি। সে সময় নিজেদের কব্জায় থাকা ২ শতাধিক জিম্মির মধ্যে অর্ধেক জিম্মিকে ছেড়ে দিয়েছিল হামাস, বিনিময়ে ইসরায়েলের বিভিন্ন কারগারে বন্দি দেড় শতাধিক ফিলিস্তিনিকে মুক্তি দিয়েছিল ইসরায়েলও।

২৫ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত স্থায়ী হওয়া সেই বিরতির পর ফের যুদ্ধ শুরু হয় ইসরায়েলি বাহিনী ও হামাসের মধ্যে। তার পরেও গত ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে একাধিকবার গাজায় যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব উঠেছে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে; সর্বশেষ প্রস্তাবটি উঠেছিল গত সপ্তাহের মঙ্গলবার।

কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তির জন্য কোনো প্রস্তাবই আলোর মুখ দেখেনি।

সেই যুক্তরাষ্ট্রই এবার গাজায় যুদ্ধবিরতির পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। আন্তর্জাতিক রাজনীতি বিশ্লেষকদের মতে, সাবেক অবস্থান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের এভাবে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে যাওয়ার প্রধান কারণ গাজার রাফাহ শহরে ইসরায়েলি বাহিনীর অভিযানের পরিকল্পনা।

রাফায় ব্যাপক সামরিক অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসরায়েল। তবে এই শহরটি মিসরের সীমান্তবর্তী হওয়ায় ইসরায়েলি বাহিনীর অভিযানে মিসরের ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে মিসর যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে ঘনিষ্ট মিত্রদের মধ্যে অন্যতম।

অনেকে আবার যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপকে ইসরায়েলের প্রতি সতর্কবার্তা হিসেবেও দেখছেন। কারণ, যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলের সবচেয়ে বিশ্বস্ত মিত্র এবং ইসরায়েলের প্রতিষ্ঠার পর থেকে রাষ্ট্রটিকে বিভিন্ন সময়ে সামরিক, রাজনৈতিক, কূটনৈতিক ও গোয়েন্দা সহায়তা দিয়ে আসছে ওয়াশিংটন।

এই যুদ্ধের শুরু থেকে ইসরায়েলকে সমর্থন জানিয়ে আসছে হোয়াইট হাউস। সেই সঙ্গে গাজায় বেসামরিক নাগরিকদের নিহতের হার হ্রাস করা, অভিযানকে আরও নিখুঁতভাবে পরিচালনা করা, উপত্যকায় ত্রাণ সরবরাহ নিয়মিত করার পরামর্শও দিচ্ছে; কিন্তু ইসরায়েলের যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা এসব পরামর্শ কানে তুলছে না। সম্প্রতি বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ইসরায়েল দ্বিরাষ্ট্র সমাধানে বিশ্বাসসিী নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন এই খসড়া প্রস্তাবটি নিয়ে ইসরায়েলের প্রতিক্রিয়া জানার চেষ্টা করেছিল রয়টার্স, তবে কোনো মন্ত্রী বা কর্মকর্তা মন্তব্য করতে রাজি হননি। আর যুক্তরাষ্ট্রের জাতিসংঘ মিশনের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রস্তাবটি চুড়ান্ত করে নিরাপত্তা পরিষদে তুলতে আরও কিছুদিন সময় নেওয়া হবে।

সূত্র : রয়টার্স

শেয়ার করুন

আরো
© All rights reserved © arabbanglatv

Developer Design Host BD