সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন

কর্মসংস্থানের অভাবে তরুণরা হতাশ হয়ে পড়ছে : জি এম কাদের

আরব-বাংলা রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৭ মার্চ, ২০২৪ ১:৫৭ pm

বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেছেন, তরুণ সমাজের জন্য মানসম্মত ও কর্মমুখী শিক্ষার ব্যবস্থা নেই। তাই তরুণ সমাজ বিদেশমুখী হচ্ছে। যেকোনোভাবে তারা বিদেশে যেতে চাচ্ছে। দেশের প্রতি আস্থাহীনতার কারণে তরুণ সমাজের মেধা ও কর্মশক্তি বঞ্চিত হচ্ছে দেশ।

যারা দেশে থাকছে তারা কর্মসংস্থানের অভাবে হতাশ হয়ে পড়ছে। হতাশা থেকে তরুণ সমাজ মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে।
আজ বুধবার (২৭ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে জাতীয় ছাত্রসমাজের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনাসভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

জি এম কাদের বলেন, ‘দেশের কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর তিন ভাগের দুই ভাগই তরুণ।

এই তরুণদের ৪০ শতাংশ অলস জীবন যাপন করছে। তাদের শিক্ষা নেই, প্রশিক্ষণ নেই। বেকার এই তরুণরা সমাজের কোনো কাজেই আসছে না। বিশাল এই তরুণ জনগোষ্ঠীকে কিভাবে কর্মক্ষম করে দেশের স্বার্থে কাজে লাগানো যায় এটাই বর্তমানে বড় চ্যালেঞ্জ।

তরুণরা সম্পদ না হয়ে বোঝা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। তারা সামাজিক ও অর্থনৈতিক বিশৃঙ্খলার কারণ হয়ে পড়েছে।’
তিনি আরো বলেন, ‘আইন-শৃঙ্খলার অবনতির অন্যতম কারণ হয়ে উঠছে মাদকাসক্ত তরুণ সমাজ। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে সহায়ক না হয়ে তরুণরা অনেক ক্ষেত্রেই বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। নিম্নমানের শিক্ষা, শিক্ষা শেষে কাজের অভাব আর চরম অনিশ্চয়তার কারণে প্রতিবছর দেশ থেকে হাজার হাজার শিক্ষার্থী বিদেশে চলে যাচ্ছে।

তারা পড়াশোনার উদ্দেশে দেশ ছাড়লেও, শিক্ষাজীবন শেষ করে আর দেশে ফিরছে না। এতে মেধাবী সন্তানদের সেবা থেকে বঞ্ছিত হচ্ছে দেশ। এর বিরূপ প্রভাবে দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির শিকার হবে বাংলাদেশ।’

২০২৩ সালে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাড়ি দিয়েছেন ৫২ হাজার ৭৯৯ শিক্ষার্থী জানিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ‘তাদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র গেছেন আট হাজার ৫২৪ জন, যুক্তরাজ্যে গেছেন ছয় হাজার ৫৮৬ জন, কানাডায় গেছেন পাঁচ হাজার ৮৩৫ জন, মালয়েশিয়ায় গেছেন পাঁচ হাজার ৭১৪ জন, জার্মানিতে পাঁচ হাজার ৪৬ জন, অস্ট্রেলিয়ায় চার হাজার ৯৮৭ জন, জাপানে দুই হাজার ৮০২ জন এবং ভারতে দুই হাজার ৬০৬ জন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় দেশে চিকিৎসাসেবা নেই বললেই চলে। যাদের টাকা আছে তাদের জন্য বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় কিছুটা চিকিৎসা আছে। আর যাদের টাকা নেই তাদের জন্য চিকিৎসার নামে কিছুই নেই। অথচ চিকিৎসাসেবা আধুনিকায়নে বছরে প্রচুর অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে, কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। অথচ চিকিৎসা ব্যবস্থা ও সেবার মান কিছুটা উন্নত করা গেলে দেশের কয়েক শ কোটি টাকা দেশে রাখা সম্ভব হবে। সরকার কেন বিষয়টি গুরুত্ব দিচ্ছে না আমরা বুঝতে পারি না।’

তিনি বলেন, “গেল ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় অনুষ্ঠিত ‘পিএইচএ গ্লোবাল সামিট-২০২৪’-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে জানানো হয়েছে, প্রতিবছর চিকিৎসার জন্য দেশ থেকে ৫০০ কোটি ডলার (পাঁচ বিলিয়ন) বিদেশে চলে যাচ্ছে। যা প্রতিবছর বেড়েই চলছে। প্রতিবছর প্রবাসী রেমিট্যান্স আয় ২৩ বিলিয়ন। প্রতি ডলার ১১০ টাকা হারে বিদেশে চলে যাচ্ছে প্রতিবছর ৫৫ হাজার কোটি টাকা। বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) তথ্য অনুযায়ী প্রতিবছর সাত লাখের বেশি রোগী চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাচ্ছে।”

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ‘সাধারণ মানুষের ধারণা, বিদেশে যাওয়া রোগীর সংখ্যা ও চিকিৎসার জন্য বিদেশে চলে যাওয়া ডলারের হিসাব আরো বেশি। কারণ অনেকেই বেড়াতে গিয়ে, ব্যবসা বা অন্য কোনো কাজে বিদেশে গিয়েও চিকিৎসা নেন। চিকিৎসা খাতে সরকারের ব্যয়ের একটি বড় অংশই খরচ হচ্ছে, অবকাঠামো তৈরিতে। এতে সাধারণ মানুষের চিকিৎসাসেবায় তেমন কোনো লাভ হয় না। সাধারণ মানুষের অভিযোগ, হাসপাতালগুলোতে অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতি নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়। চিকিৎসক থাকেন না, তারা বেসরকারি হাসপাতালে বেশি সময় দেন। সরকারি হাসপাতালগুলোতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি থাকলেও, তা সারা বছরই অচল থাকে। যাদের সামর্থ্য থাকে তারা বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। সম্ভব হলে বিদেশেও যান চিকিৎসা নিতে। কিন্তু যাদের সামর্থ্য নেই তাদের জন্য দেশে ও বিদেশে কোথাও চিকিৎসা নেই।’

তিনি বলেন, ‘গণমানুষের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ প্রতিটি উপজেলায় হাসপাতাল নির্মাণ করেছিলেন। প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসক, নার্স, ওষুধ ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি দিয়েছিলেন প্রতিটি হাসপাতালে। ওষুধ তৈরিতে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে ওষুধনীতি করেছেন। তিনি গণমুখী স্বাস্থ্যনীতি তৈরি করতে চেয়েছিলেন। তৎকালীন চিকিৎসা পেশায় জড়িত কিছু কায়েমি স্বার্থবাদী মানুষের জন্য বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। আমরা চাই, প্রতিটি জেলায় বিশেষায়িত হাসপাতাল নির্মাণ করা হোক। প্রতিটি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসক ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি দেওয়া হোক। অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতিমুক্ত পরিবেশে দেশের চিকিৎসাব্যবস্থা পরিচালনার দাবি জানাচ্ছি। তবেই দেশের মানুষের চিকিৎসার অধিকার নিশ্চিত হবে। এতে অন্তত ৫০০ কোটি ডলার বা তার চেয়ে বেশি বিদেশি অর্থ খরচ থেকে দেশ রক্ষা পাবে।’

জাতীয় ছাত্রসমাজ সভাপতি মো. আল মামুনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো. আশরাফুল ইসলাম খানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী (অব.), রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, জহিরুল ইসলাম জহির, জহিরুল আলম রুবেল, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা খলিলুর রহমান খলিল, ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান খান, শফিউল্লাহ শফি, জসিম উদ্দিন ভূইয়া, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, আবদুল হামিদ ভাসানী, বেলাল হোসেন, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য নির্মল দাস, কাজী আবুল খায়ের, সুলতান মাহমুদ, আহাদ ইউ চৌধুরী শাহিন, এলাহান উদ্দিন, এম এ সোবহান, মাহমুদ আলম, সমরেশ মন্ডল মানিক, মীর সামসুল আলম লিপটন প্রমুখ।

শেয়ার করুন

আরো
© All rights reserved © arabbanglatv

Developer Design Host BD